বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৫:১৭ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
সিটিজেন নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমের জন্য প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যারা আগ্রহী আমাদের ই-মেইলে সিভি পাঠান

হযরত শাহ্ কবির রহঃ মাজারে আশেকান ভক্তবৃন্দের উপছেপরা ভীড়

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১ জুন, ২০২১
  • ২৪ বার পঠিত

মাসুদ পারভেজ : উত্তরখান হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজার ওয়াকফ্ এস্টেট কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ ও মাজারে উন্নয়নের ছোঁয়া দেখে মাজার প্রাঙ্গনে আশেকান ভক্তবৃন্দের উপছেপড়া ভীড় জমে উঠেছে। হযরত শাহ্ কবির (রহ.) দরগাহে প্রাচীন কালে একটি ছোট মাটির মসজিদ ছিল।

কালক্রমে এটাকে কয়েক দফা সংস্কার করে নামাজের জায়গা বাড়িয়ে সম্প্রসার করে পাকা মসজিদে রুপান্তর করা হয়। প্রমি এগ্রো ফুড্স লিঃ এর চেয়ারম্যান এনামুল হাসান খাঁন শহিদ (সিআইপি) এর নিজস্ব অর্থায়নে বর্তমানে মসজিদটিকে আধুনিক,সুদৃশ্য, দৃষ্টিনন্দনসহ বহুতল করা হয়েছে। যার বর্তমান নাম- হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজার ওয়াক্ফ এস্টেট কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ। অত্র এলাকায় এই মসজিদটি কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ হিসেবে বিবেচিত।

হযরত শাহ্ কবির (রহ.) ও হযরত পাগল শাহ্ (রহ.) আশেকান ফাউন্ডেশনের সভাপতি নূরুল আমিন অরুন বলেন প্রমি গ্রুপের চেয়ারম্যান শহীদ ভাই নিজস্ব তহবিল থেকে প্রায় ২ কোটি টাকা ব্যায়ে ৬ মাস পূর্বে মাজার ও মসজিদের উন্নয়ন কাজ শুরু করেন। আল্লাহর অশেষ রহমতের তিনি শত ব্যস্থাতার মাঝেও হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজার প্রাঙ্গন পুকুরের চারিপাশের সৌন্দর্য বৃদ্ধি, অযু খানা ও মাজারের মূলফটকে অত্যাধুনিক গেইটের কাজ শুরু করেছেন। আমরা এলাকার আপামোর জনগণ ওনার নিকট কৃতজ্ঞ।

No description available.

আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মোমেন বলেন হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজার ওয়াকফ্ এস্টেট কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের নির্মাণ কাজ শেষ হলে এটি হবে ঢাকা জেলার মধ্যে আকর্ষণীয় সুন্দর একটি মসজিদ। আওয়ামী লীগ নেতা মাহি ভূইয়া বলেন এ ধরণের নান্দনিক মসজিদ ও মাজার উত্তরখান এলাকাকে সৌন্দর্য বৃদ্ধিসহ নান্দনিক করে তুলেছে, প্রমি গ্রুপের চেয়ারম্যান অবহেলিত সুলতানুল আওলীয়া হযরত শাহ্ কবির (রহ.) ও হযরত পাগল শাহ্ (রহ.) মাজার ও কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের উন্নয়ন কাজে এগিয়ে আসায়, আমরা স্থানীয় এলাকাবাসী প্রমি গ্রুপের চেয়ারম্যানের নিকট কৃতজ্ঞ। এছাড়াও উত্তরখান ৪৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জয়নাল আবেদীন বলেন, জাতির পিতার জন্মশত বার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষ্যে প্রমি গ্রুপের চেয়ারম্যান এনামুল হাসান খান তার নিজস্ব অর্থায়নে হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজার ও কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ব্যতিক্রমধর্মী এ উন্নয়ন অত্র এলাকার ধর্মপ্রাণ মুসল্লী ও নতুন প্রজন্মসহ সারা দেশের আশেকান ভক্তবৃন্দের কাছে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজার এস্টেটের এই দৃষ্টি নন্দন উন্নয়ন দেখে বর্তমান ও আগামী প্রজন্ম এখান থেকে শিক্ষা গ্রহণ করবে।

সুলতানুল আউলিয়া হযরত শাহ্ কবির (রহ.) এই মাজারটি ঢাকা মহানগর উত্তর সিটি কর্পোরেশন উত্তরার উত্তরখান থানা অবস্থিত। এলাকার প্রবীন লোকদের সাথে আলাপ করে জানা যায় প্রায় ৪৫০ বছর পূর্বে আধ্যাত্মিক সাধক হযরত শাহ্ কবির (রহ.) ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে উত্তরখানে আসেন।
হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজারে আগত আশেকান ভক্তবৃন্দ নিজেদের মনোবাসনা পূরণ হওয়ার লক্ষে এবং বিভিন্ন বিষয়ে মানত করে প্রতিদিন দানবাক্সে নগদ টাকা-পঁয়সা, হাঁস-মুরগী, গরু-ছাগল দান করলেও দীর্ঘ অনেক বছর যাবৎ হযরত শাহ্ কবির (রহ.) ও হযরত শাহ্ পাগল (রহ.) মাজার এবং ওয়াক্ফ এস্টেট কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে উন্নয়নের তেমনকোন ছোয়া লাগেনি। এহেন অবস্থায় মাজার এলাকার আশেপাশে বসবাসরত স্থানীয় জনগন, এলাকার জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদ ও সুশিল সমাজের লোকজনের অনুরোধে ছয় মাস যাবৎ এলাকাবাসীর সমন্বয়ে নিজস্ব তহবিল হইতে আর্থিক অনুদানের মাধ্যমে প্রমি গ্রুপের সম্মানিত চেয়ারম্যান, মোঃ এনামুল হাসান খান সহিদ (সিআইপি) (সাবেক মোতাওয়াল্লীর চাচাত ভাই ও হযরত শাহ্ কবির (রহ.) এর দশম বংশধর) এলাকাবাসীসহ উক্ত ওয়াক্ফ এস্টেটের সার্বিক উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড শুরু করেন যা এখনো চলমান রয়েছে।

প্লান অনুযায়ী প্রথমেই তিনি হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজারে আগত পুরুষ আশেকান ভক্তবৃন্দ ও জিয়ারতকারীদের বিশ্রাম ও রাত্রী যাপনের জন্য দুইটি বিল্ডিং ঘর নির্মাণ করেন মাজারের দক্ষিণ পূর্ব পাশের খালি জায়গায়। এছাড়াও দক্ষিণ পশ্চিম পাশে মহিলা জিয়ারতকারী ও পাগল ফকির আশেকার ভক্তবৃন্দদের জন্য রাত্রী যাপন ও বিশ্রামের জন্য বড় একটি বিল্ডিং ঘর নির্মাণ করে, জিয়ারতকারীদের রাত্রী যাপন ও বিশ্রামের ঘরের দুই পাশে তিনটি করে সু-সজ্জিত বাথরুম তৈরী করেছেন। অত্র এলাকায় মহিলাদের জুম্মার নামায পড়ার কোন মসজিদ না থাকায়, কয়েক যুগ পর হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজার এস্টেটে এনামুল হাসান খান সহিদ মাজার কেন্দ্র্রীয় জামে মসজিদের দক্ষিণ পাশে শুধুমাত্র মহিলাদের জন্য একটি সুন্দর সু-সজ্জিত পাঞ্জেগানা মসজিদ নির্মাণ করেন।
এছাড়াও হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজারের পাশে এলাকার ধর্মপ্রাণ মুসলমান, মাজারে আগত পাগল-ফকির, সুশিল সমাজ, যুব সমাজ ও ছাত্র সমাজ ইসলামী শিক্ষায় জ্ঞান অর্জন করার এবং লাইব্রেরীতে কোরআন, হাদিস রিচার্সসহ বিভিন্ন বিষয়ে গবেষণামূলক কর্মকান্ড চলমান রাখার লক্ষ্যে বিভিন্ন ইসলামিক বই, কোরআন শরীফ, বুখারী শরীফ, মুসলিম শরীফসহ বিভিন্ন ধর্মগ্রন্থ , হাদিস শরীফসহ বিভিন্ন ওলি আওলিয়াদের জীবনী লেখা বই-এ সমৃদ্ধ হয়েছে মাজার কেন্দ্রীয় লাইব্রেরী।

এ মাজার এস্টেটটে অবস্থিত হযরত শাহ্ কবির (রহ.), হযরত হাবিব শাহ্ (রহ.), শাহ্ পাগল (রহ.) ও বিবি সাহেবার মাজারকে নতুন রূপে অত্যাধুনিকভাবে সাঁজিয়ে অত্র এলাকার ধর্মপ্রাণ মুসলমান ও আশেকান ভক্তবৃন্দের হৃদয়ে দাগ কেটেছেন সিআইপি এনামুল হাসান খান সহিদ। একাধিক সূত্রে আরো জানা যায়, হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজার ওয়াক্ফ এস্টেট কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে কোটি টাকা ব্যয় করে নতুনভাবে নান্দনীক রূপে সাঁজিয়ে তোলার কারনে মাজার মসজিদটি বর্তমানে অত্র এলাকার মানুষের মাঝে দর্শণীয় স্থান হয়ে উঠেছে। মাজার প্রাঙ্গণে জিয়ারতকারীদের অবাদ চলাফেরার জন্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর মাধ্যমে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিট পুলিশিং অফিসসহ ব্যক্তিগতভাবে নিরাপত্তা প্রহরী রেখেছেন তিনি । পাগল ফকির, আশেকান ভক্তবৃন্দ ও মাজার জিয়ারতকারীদের জন্য বিনামূল্যে থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা সহ তাদের চিকিৎসা সেবার ব্যবস্থা রয়েছে হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজারে । এনামুল হাসান খান সহিদ নিজস্ব অর্থায়নে হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজার ও হযরত শাহ্ পাগল (রহ.) মাজারকে নান্দনীক রূপে নতুন করে দামী ও দৃষ্টিনন্দন টাইলস্ এর মাধ্যমে সু-সজ্জিত করার কারণে এর সৌন্দর্য্য দেখার জন্য প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ মাজার এস্টেটে ভীড় জমায়। বহু বছর পর মাজারের মনোরোম এই দৃশ্য দেখে কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে আগত ধর্মপ্রাণ মুসল্লী, স্থানীয় নারী-পুরুষ, আপামর জনগণ ও দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মাজার জিয়ারতে আগত আশেকান ভক্তবৃন্দরা দানবীর এনামুল হাসান খান সহিদ ও তার পরিবারের সদস্যদের জন্য প্রাণ ভরে দোয়া করেন বলে জানা যায়। সবকিছু মিলিয়ে বর্তমানে মাজার ও মসজিদ প্রাঙ্গনে রাতের আধারে আলোকজ্জল রঙিন বাতির আলোর ঝলকানির দৃশ্য দেখার জন্য এবং মনোরম পরিবেশে মাজার জিয়ারত করার উদ্দেশ্যে সারাদেশ থেকে হাজার হাজার আশেকান বক্তবৃন্দ বর্তমানে হযরত শাহ্ কবির (রহ.) মাজারে এসে ভীড় জমায়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved  2019 CitizenNews24
Theme Developed BY ThemesBazar.Com