বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০১:২১ অপরাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ::
সিটিজেন নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমের জন্য প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যারা আগ্রহী আমাদের ই-মেইলে সিভি পাঠান

স্বাধীনতার সুফল দেশবাসীর কাছে পৌঁছাতে হবে: দয়াল কুমার বড়ুয়া

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ, ২০২৪
  • ৩৪ বার পঠিত

স্বাধীনতা যে কোনো জাতির সবচেয়ে বড় অর্জন। বাঙালি জাতির জন্যও তা আরও বেশি সত্যি। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষিত হয়েছিল এমন একসময় যখন চারদিকে চলছিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর তান্ডব। ১৯৭০-এর নির্বাচনে জয়ী আওয়ামী লীগের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরে অস্বীকৃতি জানায় পাকিস্তানি সামরিক জান্তা।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে হানাদাররা শুরু করে ইতিহাসের সবচেয়ে বর্বরতম গণহত্যা। জাতির ওই ক্রান্তিলগ্নে ২৬ মার্চের শুরুতেই বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। ডাক দেন সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের। বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাসে স্বাধীন জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশকে সবচেয়ে গৌরবজনক ঘটনা হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

মহান স্বাধীনতা দিবসে আমরা স্মরণ করছি জাতির জনক সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। স্মরণ করছি মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহীদ ও পাকিস্তানি হানাদারদের দ্বারা নিগৃহীত ২ লাখ মা-বোনকে। মুক্তিযুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারী মিত্রবাহিনীর শহীদ যোদ্ধাদের স্মরণ করছি কৃতজ্ঞচিত্তে। সুখী ও সমৃদ্ধিশালী বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা ছিল স্বাধীনতা সংগ্রামীদের স্বপ্ন। এ স্বপ্ন পূরণে দেশ কতটুকু এগিয়েছে জাতি সে মূল্যায়ন করছে আজ স্বাধীনতার ৫৩তম বার্ষিকীতে। প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির ব্যবধান ঘোচাতেও এ দিন শপথ নেবে দেশপ্রেমী প্রতিটি মানুষ।

জাতি এ বছর এমন একসময় ৫৩তম স্বাধীনতাবার্ষিকী পালন করছে যখন বিশ্বমন্দা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ক্ষেত্রেও কঠিন চ্যালেঞ্জ সৃষ্টি করেছে। বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশের অবমাননাকর স্তর থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উন্নীত হয়েছে। বাংলাদেশের লক্ষ্য এখন উন্নত বিশ্বের দিকে। এ লক্ষ্য অর্জনে জাতিকে আরও প্রত্যয়ী হতে হবে। উন্নয়নশীল দেশে উত্তীর্ণ হওয়ার ফলে যেসব চ্যালেঞ্জ সৃষ্টি হয়েছে তা মোকাবিলায় নিতে হবে জোরালো পদক্ষেপ। স্বাধীনতার সুফল দেশবাসীর কাছে পৌঁছাতে সরকারকে নিতে হবে পরিকল্পিত উদ্যোগ।

দেশ ক্রমে এগিয়ে চলেছে অর্থনৈতিক মুক্তির পথে। আমরা উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা অর্জন করেছি। অনেক খাতেই বাংলাদেশের অগ্রগতি ঈর্ষণীয়। বাংলাদেশের এই অগ্রগতিকে অবাক চোখে দেখছে বিশ্ব। পদ্মা সেতু, মেট্রো রেল চালু হয়েছে। কর্ণফুলীর নিচ দিয়ে টানেল চালু হয়েছে। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের মতো বিশাল সব প্রকল্পের বাস্তবায়ন দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে। দেশ স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে এসেছে। ২০৪১ সালে উন্নত দেশ হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে এগিয়ে চলেছে আমাদের প্রিয় বাংলাদেশ।

সবার সম্মিলিত প্রয়াসে আমাদের প্রিয় বাংলাদেশ নতুন করে এগিয়ে যাবে এবং বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে। দেশের উন্নয়নকে শক্ত ভিতের ওপর প্রতিষ্ঠিত করতে প্রয়োজন একাত্তরের সেই ইস্পাতকঠিন ঐক্য। স্বাধীনতার সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যে অটুট থাকতে হবে। সব ক্ষেত্রে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved  2019 CitizenNews24
Theme Developed BY ThemesBazar.Com